বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম বাদশা মিয়ার স্ত্রী নূর জাহান বেগমের ছেলের বিরুদ্ধে পেনশনের টাকা জালিয়াতি ও প্রতারণার অভিযোগ তুলেছেন তার তিন মেয়ে।

আরও ঘুরে আসতে পারেনঃ ২৮ জানুয়ারির মধ্যেই এইচএসসির ফল প্রকাশ

আজ মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের এস রহমান হলে এক সংবাদ সম্মেলনে মেয়ে এ অভিযোগ করেন। অভিযোগকারী তিন মেয়ে হলেন- নুর নাহার বেগম, নুর বানু, শাহিনুর আকতার।

লিখিত বক্তব্যে তারা বলেন, আমার মা নূর জাহান বেগম বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডে এম এল এস এস পদে পাহাড়তলী শাখায় চাকরি করতেন। গত বছরের ২৫ এপ্রিল কর্মরত অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর কিছুদিন পর আমাদের বড় ভাই মো. নজরুল ইসলাম আমাদের তিন বোনের স্বাক্ষর জালিয়াতি ও প্রতারণা করে আমার মায়ের ১৮ মাসের বেতন তুলে ফেলে। পরে পেনশনের টাকা তুলতে গেলে আমরা অভিযোগ দিই।

তিন মেয়ে আরো বলেন, আমার বড় ভাই একজন বড় প্রতারক। সে গত ৪ জানুয়ারি সংবাদ সম্মেলন করে আমার মায়ের একমাত্র নমিনি দাবি করে। আমাদের স্বাক্ষর জালিয়াতি করে বিদ্যুৎ অফিস থেকে ৩ লাখ টাকা উত্তোলনও করে ফেলে। তার নামে নারীঘটিত নানান অভিযোগ রয়েছে। সে একাধিক বিয়েও করেছেন। খুলনার এক মেয়েকে বিয়ে করে তার করা মামলায় তার জেলও হয়।

যার ফলশ্রুতিতে তাকে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চাকরি থেকে তাকে বরখাস্ত করা হয়। জীবিত অবস্থায় সে আমাদের মাকে মারধর করেছেন। তার কারণে আমাদের মা স্ট্রোক করে মৃত্যুবরণ করেন। সে আমাদের তিন বোনকে নানা রকম হুমকি ও ভয় প্রদর্শন করে। তার কারণে আমরা তিন বোন স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারছি না। নজরুলের জালিয়াতির বিষয়ে জানতে পেরে আমরা তিন বোন নিজেদের প্রকৃত ওয়ারিশ দাবি করে বিদ্যুৎ অফিস পাহাড়তলীতে একটি দরখাস্ত দিই এবং একটি উকিল নোটিশও প্রদান করি।

এরপর বিদ্যুৎ অফিস নজরুলের সকল সুযোগ সুবিধা বন্ধ করে দেন। পরে সে বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করে এবং তাদের ফোন করে নানাভাবে হুমকি ও গালমন্দ করতে থাকেন। বীর মুক্তিযোদ্ধার কন্যা হিসেবে তারা প্রধানমন্ত্রী এবং বিদ্যুৎ অফিস পাহাড়তলীর কাছে তাদের ন্যায্য পাওনার জন্য দাবি জানান।

আরও বিস্তারিত জানতে এখানে প্রশ্ন করুন

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments